রেডিও স্বাধীন দেশ https://www.radioshadhindesh.com/2022/05/smoking-is-injurious-to-health.html

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

 

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

ছোটবেলায় বাবাকে ধূমপান করতে দেখেছি। কিন্তু এটা অস্পষ্ট মনে হয়. এক পর্যায়ে, বাবা ধূমপান ছেড়ে দেন এবং মদ্যপান শুরু করেন। মাও তার বাবাকে দেখে খাওয়া-দাওয়া শিখেছিলেন। তবে আব্বা পানের সঙ্গে অলোক পাটা খাননি। একটু পানের খড় আর চুন হয়ে যেত। কিন্তু মা হালকা পাতা খায়। হালকা পাতা বা অনেকটা তামাক পাতার মতো। কিন্তু যদি তাই হয় তাহলে আমার মনে হয় বাংলার হাজার হাজার মা তামাক খাচ্ছেন। তবে বড় মা পান খাওয়াই ভালো কারণ বড় মা (মেঝা আন্টি) পান খায় হাকিমপুরী জর্দা দিয়ে- যার গন্ধ ভালো! ছোটবেলায় আমি আমার বড় মায়ের সাথে জর্ডান খেতাম। আমি চিবাতে পারতাম না বলে, আমার দাদি পানীয়টি চিবিয়ে মুখে দিতেন।

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

ছোটবেলায় আর কি দেখেছি জানো? পাশের হিন্দু বাড়িতে অশ্বিনীদারা মাছ ধরার জাল বুনতেন। অশ্বিনীদার মা জাল বুনতে গিয়ে হুক্কা খেতেন। একটা গর্জন শব্দ হল আর একটা লম্বা হুক্কা লাঠি দিয়ে ধোঁয়া বের হল। পাশের বাড়ির সুজাতার বাবাকেও হুক্কা খেতে দেখেছি। ছোটবেলায় তিনটি জিনিস দেখেছি, বাবা সিগারেট খায়, মা বড় মা আর অশ্বিনীদার মা হুক্কা খায়। কিন্তু তখন কোনো নারীকে বিড়ি বা সিগারেট খেতে দেখিনি।

ইডেনের হোস্টেলে যখন প্রথম আসি, তখন জানতে পারি সিগারেটও মেয়েদের জন্য। এবার অবশ্য কেউ কেউ নড়বড়ে বসবেন। কারণ ইডেন নামটা শুনলেই অনেকের মনে হয় যেহেতু ওখানে মারামারি হয়, সিগারেট একটা তুচ্ছ ব্যাপার। কিন্তু না, আপনার ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। আমাদের সময়ে ইডেনে রাজনৈতিক দলাদলি ছিল কিন্তু চুলা ছিল না। আমি তখনকার কোনো নেতাকে জিন্স বা টি-শার্ট পরতে দেখিনি, সিগারেট-বিড়ি খেতে দেখিনি, কিন্তু তারা সবাই খুব সুন্দর এবং স্মার্ট ছিল। আপনি কি মনে করেন যে আমি শিরোনামে সিগারেট রেখে এই সব সামলাতে পারি? এবার মূল কথায় আসা যাক।

আমাদের ঘরে খুব স্মার্ট একটা বোন ছিল। দক্ষিণবঙ্গের মেয়ে। বাবা-মা দুজনেই ছিলেন স্কুল মাস্টার। একটি বায়িং হাউসে পার্টটাইম কাজ করতেন অপু। তিনি একজন চেইন স্মোকার ছিলেন, এক আগুন থেকে অন্য আগুনে সিগারেট ধরেছিলেন। প্রথম দিন একটু হতভম্ব হয়েও ওকে বুঝতে দিলাম না। আমি তাকে জানালার পাশে টেবিলে বসে পা তুলে ভারী সিগারেট টেনে জানালা দিয়ে ধোঁয়া এসএম হলের দিকে ছুড়ে দিতে দেখলাম। সে কোনদিন কোন রুমমেটকে বলে নি, কিরি- দিবি নাকি টাগ? তবে কেউ কেউ শখের দুয়েক টানাটানি করলেও কাশির জ্বালা সহ্য করতে পারেননি।

যাই হোক, একদিন আমি আমার বোনের সাথে জরুরি কাজে বাইরে যাচ্ছিলাম। অপু সিএনজিতে বসে সিগারেট জ্বালালো। সিএনএসজিওয়ালা লুকিং গ্লাসে ফিরে তাকাতে থাকলেন। হয়তো ভাবছিলাম, এ এক আজব পাখি! মেয়ের ঠোঁটে বানসন?

আমি বাড়িতে বলিনি যে আমার রুমমেট একজন ধূমপায়ী। আমি শুধু পলিটিক্যাল রুমে থাকি, তারপর যদি আমার বাবা ভাই জানলে আমার রুম মেট সিগারেট খায়, তাহলে কি হবে বুঝতেই পারছেন! প্রথমে আমরা কেউই ওই আপুটা নিয়ে একা বের হতে চাইতাম না। আমি ভাবতাম যে মেয়ে সিগারেট খায় সে ভালো মেয়ে নয়। কিন্তু যতই দিন যাচ্ছে ততই বুঝতে পারছি অপু মানুষ হিসেবে অসাধারণ। এমনকি সে তার ভবিষ্যৎ স্বামীর সাথে সিগারেটও খায়। এখন দুজনেই সম্ভবত অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছেন।

আসলে বাইরে থেকে বিড়ি সিগারেট পান করা মেয়ে বা যে কোন ব্যক্তিকে বিচার করা একজন শিক্ষিত ব্যক্তি হিসেবে খুবই অশালীন ও নিন্দনীয়। কিন্তু সেটাই আমরা সবসময় করি।

আমি হেসে বললাম, মানবতার সাথে ধূমপানের সম্পর্ক কি? যা খারাপ তা ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের জন্যই খারাপ। কেন দেখছেন না, নাটক-সিনেমা শুরু হওয়ার আগেই স্ক্রিনে লেখা ছিল ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য আঘাত মানে ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু কোথাও লেখা নেই যে এটা শুধু ছেলেদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। মানুষের উভয়ের জন্যই ক্ষতিকর।

সিগারেট এমন একটি পণ্য যা তামাক পাতা সূক্ষ্মভাবে কেটে একটি কাগজে মোড়ানো সিলিন্ডারে পরিমার্জন করে তৈরি করা হয়। সিগারেট সাধারণত তামাক থেকে তৈরি সিগারেটকে বোঝায়, তবে বিশেষ করে এটি যে কোনো ধরনের উপাদানকে বোঝায়। উদাহরণস্বরূপ, গাঁজা দিয়ে সিগারেট তৈরি করা যেতে পারে। বাংলাদেশে ধূমপান বা তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার আইন দ্বারা নিষিদ্ধ এবং তা জনসমক্ষে গৃহীত হলে জরিমানা যোগ্য। সংবিধানের 4 অনুচ্ছেদ অনুসারে 2005 সালে একটি আইন পাস হয়েছিল।

তামাক ব্যবহার প্রতি বছর বিশ্বে প্রায় 6 মিলিয়ন মানুষ মারা যায়। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের দেশে নারীদের মধ্যে তামাক ও মাদকের ব্যবহারও বেড়েছে। মাদকবিরোধী সংগঠন 'মানস' এ কথা জানিয়েছে। মানসের সভাপতি ডাঃ অরূপ রতন এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে বাংলাদেশে ১৫ বছরের বেশি বয়সী ৪৩ শতাংশ মানুষ তামাকের প্রতি আসক্ত। তাদের মধ্যে ২৯ শতাংশই নারী। 15-35 বছর বয়সী মহিলারা বেশি আসক্ত। তবে বেশিরভাগ নারীই ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার করেন। সমীক্ষা অনুসারে, 30 শতাংশ মহিলা কর্মক্ষেত্রে এবং 20 শতাংশ পাবলিক প্লেসে ধূমপান করেন।

তবে নারী ধূমপায়ীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। ইয়াবা বর্তমানে বাংলাদেশে বিভিন্ন কোম্পানির সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত তামাক। বর্তমান মাদক ফেনসিডিল বা ডালের ব্যবহার কিছুটা কমে গেলেও ইয়াবা এখন তরুণদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়। এগুলো বাজারে বিভিন্নভাবে চুরি হচ্ছে এবং কিছুটা সহজলভ্য হওয়ায় অল্পবয়সীরা সহজেই আক্রান্ত হচ্ছে।

মেডিকেল জার্নাল দ্য ল্যানসেটের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিছু দেশে উচ্চ কর, প্যাকেটের ওপর সতর্কতা এবং বিভিন্ন প্রচারের মাধ্যমে সিগারেটের আসক্তি হ্রাস পেয়েছে। তবে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়নি। বরং তরুণ-তরুণীরা দিন দিন মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে। ডাক্তারের কাছে গেলে ডাক্তার বলবেন সেটা মনের উপর নির্ভর করে। আপনি চাইলে ছাড়তে পারেন কিন্তু আমি জানি অনেক ডাক্তার আছেন যারা বিভিন্ন ধরনের মাদকে আসক্ত।

ধূমপান শুধু ধূমপায়ী নয়, তার আশেপাশের মানুষেরও ক্ষতি করে। সিগারেটে 56টি মারাত্মক রাসায়নিক পাওয়া গেছে যা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। তেমনি একটি হল নিকোটিন। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে দুটি সিগারেটের নিকোটিনের পরিমাণ যদি একজন সুস্থ ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করানো হয়, তাহলে সেই ব্যক্তির মৃত্যু হবে (সূত্র: উইকিপিডিয়া)।

যাই হোক, বিষাক্ত নিকোটিন শরীরে নেই বা আমাদের আত্মীয়-স্বজনদের কথা না ভাবলেও আমরা জানি ও বুঝলেও দোষটা আমার নয়- আপনার, ধূমপায়ীর দোষ তার নিজের। আমি আমার মা এবং বাবা সম্পর্কে লিখতে শুরু করেছি, কারণ যে বলে, আমি আমার বাবাকে সিগারেট খেতে এবং পান করতে দেখেছি, কিন্তু আমি আমার মাকে কেবল পান করতে দেখেছি। আমাদের বাংলাদেশের পরিবেশে মেয়েদের সিগারেট খাওয়া আবার উন্মুক্ত, কেন মধ্যবিত্ত, এমনকি উচ্চবিত্ত সমাজ 10/15 বছর আগেও তা ভাবতে পারেনি। অভিজাত পরিবারের মহিলাদের এই ক্লাব-বারগুলিতে মদ পান করা বা সিগারেট খাওয়া অস্বাভাবিক ছিল না। তবে সময়ের সাথে সাথে এটি পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রযুক্তি আধুনিক হয়েছে, দেশ

ডিজিটাল হয়েছে এবং তরুণ সমাজকে পাশ্চাত্যের ছোঁয়া লেগেছে। পোশাক থেকে শুরু করে চুল কাটা থেকে শুরু করে খাবার দাবার, আধুনিকতার মোড়কে আজকের যুবসমাজ পুরোপুরি মোড়ানো। বাবা-মা চাইলেও সন্তানকে নিজেদের ইচ্ছার গণ্ডির মধ্যে রাখতে পারেন না। ছেলেরা এখন সমান গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, পড়াশোনা থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্রে সব জায়গায়, কিন্তু কোথাও কোথাও দেখা যাচ্ছে মেয়েরা ছেলেদের চেয়ে এগিয়ে। মেয়েরা বিমান উড়ছে, রিক্সার প্যাডেল ঘুরিয়ে পৃথিবীর হাল ধরছে আবার জয় করছে পাহাড়ের সর্বোচ্চ চূড়া।

মহিলা বক্তা, মহিলা পুলিশ সুপার, মহিলা কাগজ সম্পাদক, মহিলা নেত্রী, মহিলা রাষ্ট্রনায়ক। দেশ কোথায় পৌঁছেছে বলে মনে করেন? কিন্তু এত কিছুর পরও নারীরা অবহেলিত, নির্যাতিত, নির্যাতিত ও অপমানিত। টেলিভিশনের পর্দায় নারী ও শিশু ধর্ষণের খবর রোজ পেপারের পাতায় পাতায়। নারী শিক্ষার অগ্রগতি লাভ কি? আসলে আমাদের পুরুষশাসিত সমাজে নারীরা যতই ক্ষমতাবান বা ক্ষমতাবানই হোন না কেন, এক শ্রেণীর মানুষ সবসময় তাদের নিচে রাখার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। পোশাকের কারণে নারীরা ধর্ষিত হচ্ছে, নারীর উন্মোচনের কারণে সমাজের যুবসমাজ নষ্ট হচ্ছে, আমাদের আধুনিক শিক্ষিত সমাজের তথাকথিত গোষ্ঠী এমন বক্তব্য পেশ করছে যে, পুরুষের অবাধ মেশার কারণে সামাজিক অবক্ষয় হচ্ছে এবং নারী নারী ও শিশু ধর্ষণের প্রধান অপরাধী কারা।

সমাজে এক শ্রেণীর লোক আছে যারা সঠিক নয়, এমন কিছু লোক আছে যারা অন্যের ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে এগিয়ে যেতে পছন্দ করে। কিন্তু তারা বোধহয় জানে না এটা এক ধরনের সামাজিক অপরাধ। এই দেখো না, মাত্র কয়েকদিন আগে রাজশাহীতে এক নারীর ঠোঁটে জ্বলন্ত সিগারেট দেখে বাংলাদেশের মিডিয়া থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ তোলপাড় শুরু করে। যেন তারা অন্য গ্রহের কোনো প্রাণী দেখছে। কিন্তু মেয়েটি তার ছেলে বন্ধুর পাশে বসে একসাথে সিগারেট খাচ্ছিল। আশেপাশের অন্য মেয়েরা এগিয়ে গিয়ে একজন শিক্ষিত প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে পড়াতে গিয়ে সর্বনাশ হবে বলে প্রতিবাদ করা লোকটিকে কে দিল? একটা মেয়ে বোরখা ছাড়া মাঠে ক্রিকেট খেলছে, মেয়েরা হাফপ্যান্ট পরে মাঠে ফুটবল খেলছে।

পতিতাবৃত্তির টাকায় ৪০/৫০ শিশুকে লালন-পালন করা এক নারী তাদের পড়া শেখাচ্ছেন। নারীর হাতে সিগারেট দেখে নারীকে লাঞ্ছিত করে সমাজ চলে গেছে বলে চিৎকার করে শত শত লোকের মধ্যে থেকে কি সমাজ কিছু পেল?

এটা সিগারেটের দোষ নয়, এটা নারীর দোষ। সন্ধ্যায় টিএসসিতে যান, এসব জায়গায় গিয়ে দেখি খোলামেলা মেয়েরা ধূমপান করছে। ধাক্কাধাক্কি দেখে হয়তো অবাক হবো, কিন্তু দেখতে খারাপ লাগবে, কিন্তু আমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে একটা মেয়েকে বলবো, হাতের সিগারেটটা ফেলে দিলে, না হলে ধর্ষিতা হবে।

আরে ভাই, সমাজ যাতে কলুষিত না হয় তার দায়িত্ব প্রশাসনের। আপনি এবং আমি যা করতে পারি তা হল দেওয়ালে আঁচড় দেওয়া নয়, রাস্তায় টিস্যু বা কাগজ ছুঁড়ে ফেলবেন না, পানীয় বা সিগারেটের টুকরোটি ফেলে দেবেন না। কিন্তু আমরা কি তা করি? আমি যখন মেয়েদের দেখি, আমি কি আমার আসন ছেড়ে তাকে সম্মান দেখাই এবং তাকে এখানে বসতে বলি?

সেদিন রাজশাহীতে ঘটনার পর আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে দেখেছি একদল যুবক প্রতিবাদে সিগারেট খেয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেও দেখছি কিছু লোক প্রতিবাদে মেয়েদের সিগারেট খাওয়াচ্ছে। সেদিন ঘরে ঢুকে দেখি আমার বাড়ির পাশের বাড়ির গেটের সামনে একদল ছোট বাচ্চা সিগারেট খাচ্ছে। কিন্তু প্রতিবাদের নাম কি? আপনি, যারা পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যত নেতা, জেনে-বুঝে নিজের অজান্তে এই বলে নিজের ক্ষতি করছেন যে একজন মানুষ তার জ্ঞানের অভাবের কারণে ভুল করেছে?

যেকোনো অভ্যাস ত্যাগ করা কঠিন। যদি আপনাকে বলা হয় যে আপনি যাকে ভালবাসেন তাকে ছেড়ে চলে যেতে - সে আসলেই ভালো মানুষ নয়। আপনি কি তাকে তাড়াহুড়ো করে ছেড়ে যেতে পারেন? সিগারেট বা তামাকের নেশা অনেকটা ভালোবাসার মতো। তাই চলে যাওয়ার ঝামেলা হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আপনি যখন বুঝতে পারবেন যে এই ভালোবাসার মানুষটি আপনাকে দেখাচ্ছে যে সে আপনাকে নিকোটিনের মতো কিছুটা ক্লান্ত করছে?

তাই নিজের জন্য যেটা ক্ষতিকর সেটা একটু কঠিন হলেও ত্যাগ করবেন না। একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে সমাজ ও দেশের প্রতি আমাদের সকলেরই কিছু না কিছু দায়বদ্ধতা আছে, কিন্তু যাকে অমানবিকতা বলা হয় তা আমরা করব কেন? তার জন্য সরকার-প্রশাসন আছে। তবে পরিশেষে আবারও বলবো যে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর তার থেকে পরিত্রাণ পাওয়াই ভালো।

সিনিয়র গবেষক ড. ইমানুয়েল গাকিডো আরও বলেন, বিশ্বের প্রতি চারজনের মধ্যে একজন ধূমপায়ী। এটি অকাল মৃত্যু এবং অক্ষমতার একটি প্রধান কারণ। প্রতিবেদনে বলা হয়, কয়েক দশক ধরে তামাক নিয়ন্ত্রণ নীতি সত্ত্বেও ধূমপায়ীদের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। তাই আমাদের আরও সচেতন হতে হবে। আসুন একজন নারী ধূমপায়ীকে নিয়ে মিডিয়ায় তোলপাড় না করে, এই নেশা থেকে মানুষকে কীভাবে দূরে রাখা যায় সে বিষয়ে সচেতন হই, জায়গায় জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করি।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

রেডিও স্বাধীন দেশ কী রেডিও স্বাধীন দেশ কেন জানতে আমদের সাইটি ভিজিট করুন