রেডিও স্বাধীন দেশ https://www.radioshadhindesh.com/2022/04/blog-post.html

আজকে রমজানে ইফতারির প্রস্তুতি - বাংলাদেশে রমজানের ইফতারির আয়োজন - রমজানে শরবতের পস্তুতি

বাংলাদেশ রমজানে ইফতারির আয়োজন - ইফতারে এক গ্লাস ঠান্ডা গুড়ের শরবত গরমের ক্লান্তি দূর করে। গুড়ের শরবত  সিরাপ নিজেই স্বাস্থ্যকর উপায়ে তৈরি করতে পারেন। কোন অতিরিক্ত রং বা রাসায়নিক ছাড়াই কিভাবে মজাদার গুড়ের শরবত তৈরি করবেন জেনে নিন।

দরজায় কড়া নাড়ছে রমজান। রমজান উপলক্ষে রাজশাহি হোটেলে চলছে নানা আয়োজন।  স্থানীয় সকল ইফতারের আয়োজন করা হয় হোটেলটিতে। ইফতার বুফেতে হুমুস, সরমা, কাবসা, বাকলাভা, কাতায়েফের পাশাপাশি বাঙালি ছোলা, পেঁয়াজ, বেগুনি, শাহী হালিম, রেশমি জিলাপিসহ আরও অনেক আইটেম পাওয়া যাবে।

আজকে রমজানে ইফতারির প্রস্তুতি


পেজ সূচিপত্রঃ বাংলাদেশ রমজানে ইফতারির আয়োজন 

বাংলাদেশ  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | বাংলাদেশ  রমজানে ইফতারির আয়োজন 

বাংলাদেশ  রমজানে ইফতারির পস্তুতি - আমাদের দেশে ইফতারের জন্য পরিচিত খাবারের মধ্যে রয়েছে ছোলা-মুড়ি, খেজুর, পেঁয়াজ, বেগুনী, হালিম, আলুর চপ, জিলাপি ইত্যাদি ছাড়াও ইফতারের খাবার তালিকায় রয়েছে নানা ফল। অনেকে ইফতারে হালিম পছন্দ করেন, কেউ কেউ ইফতারে বিরিয়ানি, তেহরির মতো ভারী খাবারও খান। এছাড়া শরবত একটি সাধারণ আইটেম।

হিরণ  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | হিরণ রমজানে ইফতারির আয়োজন 

ইরানিরা সাধারণত ইফতারের সময় ভারী খাবার খান না। ইফতারে মিষ্টি, খেজুর, পুডিং, চা, লেভাস বা বারবারি, পনির, তাজা ভেষজ নামক এক ধরনের রুটি দিয়ে পরিবেশন করা হয়।

সৌদি আরব  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | সৌদি আরব রমজানে ইফতারির আয়োজন 

বাংলাদেশ রমজানে ইফতারির আয়োজন  - সৌদি আরবের মসজিদে হারাম ও নবাবী মসজিদে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইফতার অনুষ্ঠিত হয়। এই ইফতারের জন্য প্রতিদিন লাখো মানুষের সমাগম হয়। ইফতারে কোনফা, ত্রমবা, বাচবুচান্দার নামে নানা ধরনের পুডিং পাওয়া যায়। সাম্বুচা সৌদি আরবের মানুষের প্রিয় খাবার। এটি দেখতে অনেকটা সামুরাইয়ের মতো এবং ভিতরে মাংসের কিমা রয়েছে। এছাড়া লাবন, জবাদি (দই), সালতা (সালাদ), সরবা (স্যুপ), তমিজ (বড় রুটি) ইত্যাদি ছাড়াও রয়েছে খেজুরের তৈরি নানা ধরনের সুস্বাদু খাবার।

হিমালয়  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | হিমালয় রমজানে ইফতারির আয়োজন 

মালয়েশিয়ানরা ইফতারে বারবুকা পুয়াসা খায়। এটি মূলত আখের রস এবং সয়াবিন দুধ দিয়ে তৈরি করা হয়। এ ছাড়া তাদের ইফতারে রয়েছে পোস্ত কলা, নাসি আয়ম, লেমাক লাঞ্জা, আয়াম পেরিকসহ অন্যান্য খাবার। মালয়েশিয়ার বেশিরভাগ মসজিদে রমজানে আসরের নামাজের পর স্থানীয়দের ভাত পারিজ নামে একটি বিশেষ খাবার বিনামূল্যে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুনঃ রোজা ভঙ্গের কারণ কী কী 

হেব্রোনাই  রমজানে ইফতারির পস্তুতি  হেব্রোনাই রমজানে ইফতারির আয়োজন 

ব্রুনাইয়ের মসজিদে ইফতারের আয়োজন করা হয়। স্থানীয় ভাষায় ইফতারকে সোনকাই বলে। সাধারণত সরকার ও স্থানীয় জনগণ যৌথভাবে এ গানের আয়োজন করে থাকে। ইফতারের আগে এখানে বেদুক নামে এক ধরনের ঢোল বাজানো হয়। মানে ইফতারের সময়। তবে সোনকাইয়ের সংকেত হিসেবে রাজধানী সেরি বেগাওয়ানে আর্টিলারি শেল নিক্ষেপ করা হয়।

হুমিসার  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | হুমিসার  রমজানে ইফতারির আয়োজন 

মিশরে ইফতারের প্রধান মেনু হল কোনাফা এবং কাতায়েফ। দুটি খাবারই মূলত কেক। এসব খাবার চিনি, ময়দা, বাদাম ও মধু দিয়ে তৈরি করা হয়। মিশরে, ইফতারের আগে, ছোট শিশুরা দেশের রাস্তায় লেটুস বিক্রি করে। ইফতারের সময় মিশরে এই লেটুস খুবই জনপ্রিয়।

ইন্দোনেশিয়া রমজানে ইফতারির পস্তুতি | ইন্দোনেশিয়া রমজানে ইফতারির আয়োজন 

এখানে ইফতারকে বলা হয় বুক পুয়াসা। বেদুক খেলে ইফতারের সময় নিশ্চিত করার রেওয়াজ রয়েছে দেশে। ইন্দোনেশিয়ানদের সাধারণত বাজার থেকে ইফতার কিনতে দেখা যায়। বাড়িতেও ইফতার করা হয়। আসরের নামাজের পর ইন্দোনেশিয়ার বাজারগুলোতে ইফতার কিনতে ভিড় লেগেই আছে।

হামাল দ্বীপ রমজানে ইফতারির পস্তুতি | হামাল দ্বীপ রমজানে ইফতারির আয়োজন 

মালদ্বীপে ইফতারকে বলা হয় 'রোদা ভিলান'। দেশে ইফতারের প্রধান উপকরণ শুকনো খেজুর। খেজুরের রস এখানকার একটি পরিচিত খাবার। এই খাবারটি বিশেষ করে মালদ্বীপের মানুষ ইফতারের সময় খায়।

হাসি  রমজানে ইফতারির পস্তুতি | হাসি রমজানে ইফতারির আয়োজন 

সিরিয়ায় ইফতারে হালুয়া একটি জনপ্রিয় খাবার। বলা হয় যে সিরিয়ার মানুষ আরব বিশ্বের সেরা পুডিং তৈরি করে। তারা হালুয়াকে শিল্পের মঞ্চে নিয়ে গেছে। সিরিয়ায় বিভিন্ন ডিজাইনের পুডিং তৈরি হয়। এছাড়া ইফতারের পর সিরিয়ার লোকেরা দিজাজ সায়া, খাবুজ, সারাবা ইত্যাদি খায়।

রমজানে গুড়ের শরবত পস্তুতি | রমজানে চিনির শরবত আয়োজন  

এই গরমে সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে এমন কিছু যা শরীরকে ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করবে। ইফতারের মেনুতে রাখতে পারেন জীবনদায়ী গুড়। ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক এবং আয়রন সমৃদ্ধ গুড় শক্তি জোগাবে পাশাপাশি হজমের ব্যাধি দূর করবে। জেনে নিন কীভাবে ছয়টি ভিন্ন স্বাদের গুড়ের শরবত তৈরি করবেন।

তেঁতুলের গুড়ের শরবত পস্তুতি

2 টেবিল চামচ তেঁতুল সামান্য পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখুন। তারপর ক্বাথ বের করে নিন। আখের গুড় স্বাদমতো তেঁতুলের ক্বাথ, আধা চা চামচ ভাজা জিরার গুঁড়া, সামান্য লবণ ও সাধারণ লবণ দেড় কাপ পানি দিয়ে ব্লেন্ড করুন। পরিবেশনের আগে ছেঁকে নিন এবং বরফের টুকরো দিয়ে গ্লাসে ঢেলে দিন।

লেবু -পুদিনা গুড়ের শরবত পস্তুতি

একটি ব্লেন্ডারে ১০টি পুদিনা পাতা, স্বাদমতো আখের গুড়, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, লবণ, বিট লবণ এবং দেড় কাপ পানি মিশিয়ে নিন। ছেঁকে তারপর বরফ দিয়ে পরিবেশন করুন।

তোকমা গুড়ের শরবত পস্তুতি

এক গ্লাসে ১ টেবিল চামচ তোকমা ও ইসুবগুল একসাথে মিশিয়ে আধা গ্লাস পানি নিন। কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখুন। একটি ব্লেন্ডারে আখের গুড়, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, লবণ, বিট লবণ এবং ১ কাপ পানি দিয়ে ব্লেন্ড করুন। একটি তোকমা ভেজানো গ্লাসে মিশ্রণটি ঢেলে পরিবেশন করুন।

আরও পড়ুনঃ রোজা ভঙ্গের কারণসমূহ

কমলা ট্যাং মধ্যে গুড়ের শরবত পস্তুতি

একটি ব্লেন্ডারে স্বাদমতো আখের গুড়, 1 টেবিল চামচ কমলা ট্যাং, স্বাদমতো লবণ এবং 1.5 কাপ ঠান্ডা পানি ব্লেন্ড করুন। একটি চালুনি গ্লাসে ঢেলে দিন।

আদা গুড়ের শরবত পস্তুতি

একটি ব্লেন্ডারে ৩ টেবিল চামচ আখের গুড়, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, লবণ, ১ চা চামচ আদার রস, বিট লবণ এবং ১.৫ কাপ ঠান্ডা পানি একসাথে ব্লেন্ডারে রাখুন। গ্লাসে ঢেলে ইফতারের আগে পরিবেশন করুন।

রুহ আফজা ও গুড়ের শরবত পস্তুতি

3 টেবিল চামচ আখের গুড়, 1 টেবিল চামচ রুহ আফজা, 1/4 চা চামচ লবণ এবং দেড় কাপ ঠান্ডা পানি একসাথে ব্লেন্ড করুন। একটি গ্লাসে পরিবেশন করুন।

রোজায় পানির চাহিদা মেটাবে এসব খাবার আজকের রমজানে ইফতারির পস্তুতি

আজকের রমজানে ইফতারির পস্তুতি - এবার প্রচণ্ড গরমে রোজা পড়ছে। গরম আবহাওয়ায় পানিশূন্যতা এড়াতে ইফতার ও সেহরির সময় খাদ্য তালিকায় কিছু খাবার অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। রমজান মাসে পানিশূন্যতা থেকে দূরে রাখবে পানিসমৃদ্ধ এই খাবারগুলো। এই গরমে সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে এমন কিছু যা শরীরকে ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করবে। ইফতারের মেনুতে রাখতে পারেন জীবনদায়ী  পানির  । ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক এবং আয়রন সমৃদ্ধ রোজায় পানির শক্তি জোগাবে পাশাপাশি হজমের ব্যাধি দূর করবে। জেনে নিন কীভাবে ছয়টি রোজায় পানীয় খাবার।

  • সেহরির মেনুতে দুধ রাখতে পারেন।
  • নিয়মিত তরমুজ খান। এই ফলের প্রায় 92 শতাংশ পানি দিয়ে তৈরি।
  • শসায় প্রায় ৯৫ শতাংশ জল থাকে। এই গরমে শরীর ঠান্ডা থাকবে তাই খেলে।
  • ইফতারে নারকেল পানি খান। এটি তাপ ক্লান্তি দূর করবে এবং ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ করবে।
  • 6 শতাংশ জল ছাড়াও, দই প্রোটিন এবং ক্যালসিয়ামের একটি চমৎকার উৎস। ইফতারে চিড়া বা ফলের সঙ্গে এক বাটি দই খেলে শরীর ঠান্ডা থাকবে।
  • তাজা ফলের রস দিয়ে ইফতার করলে এনার্জি পাওয়া যায় এবং শরীরের পানির চাহিদা পূরণ হয়। মালটিজ, কমলা, ডালিম, আপেলের জুস মেনুতে থাকতে পারে।

উপরে সকল বিষয় আপনাদের উপকার কারার জন্য দেওয়া আছে যদি কিছু ভুল হয় তাহলে আমাকে কমেন্ট করে যানাতে পারেন কারণ মানুষ মাত্র ভুল হয়। আর যদি আমর ওয়েব সাইট টি ভালো লেগে থাকে তবে চাইলে পাশে থাকতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ ]

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

রেডিও স্বাধীন দেশ কী রেডিও স্বাধীন দেশ কেন জানতে আমদের সাইটি ভিজিট করুন