রেডিও স্বাধীন দেশ https://www.radioshadhindesh.com/2022/02/Will%20take%2015%20thousand%20teachers%20NTRCA.html

১৫ হাজার শিক্ষক নিবে NTRCA || আবেদন করুন আপনার পছন্দ মত

আজ আমি আপনাদের সামনে সুন্দর একটা বিষয় নিয়ে আলোচনা করব, আশা করি আপনাদের সবার যানলে উপকার হবে। ১৫  হাজার শিক্ষক নিবে NTRCA। আর আপনাদের সুবিধা মতো পছন্দের স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, কারিগরি এবং ব্যবসায়িক ব্যবস্থাপনা সংস্থাগুলির মধ্যে, আপনি চাকুরি করতে পারবেন। তাহলে চলুন যেনে নেওয়া যাক কোন কোন প্রতিষ্ঠানে আপনি অ্যাপ্লাই করতে পারবেন। 

১৫ হাজার শিক্ষক নিবে NTRCA || আবেদন করুন আপনার পছন্দ মত



বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (NTRCA) বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫,১৭৩ শিক্ষক নিয়োগের জন্য একটি বিশেষ পাবলিক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। ১৫ হাজার ১৭৩টি পদের মধ্যে MPO ভুক্ত পদ শূন্য রয়েছে ১২ হাজার ৬০৭টি। নন-এমপিও পদ রয়েছে ২ হাজার ৩৫৮টি। 

বেসরকারি স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা, কারিগরি ও ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসব শিক্ষক নেওয়া হবে। ইতিমধ্যে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। 22 ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

আবেদনকারীদের বয়স ১ জানুয়ারী, ২০২০ এর মধ্যে কমপক্ষে ৩৫ বছর বা তার কম হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক জারি করা সর্বশেষ জনবল কাঠামো এবং এমপিও নীতি অনুসরণ করতে হবে। 

আরও পড়ুনঃ পুস্পা জ্বরে আহত কোহলি || Kohli injured by flower fever

যাইহোক, বয়সসীমা সূচক সহ প্রার্থীদের জন্য প্রযোজ্য যারা শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। এছাড়াও, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রায় অনুসারে, যারা ১২ জুন ২০১৮ এর আগে নিবন্ধন করেছেন কিন্তু সূচক নেই তাদের জন্যও এই বয়সসীমা শিথিল করা হবে। 

প্রতিটি আবেদনের জন্য ১০০ টাকা ফি দিয়ে আলাদাভাবে আবেদন করতে হবে। আবেদন করে পছন্দক্রম নির্ধারণের কোনো সুযোগ ছিল না। উপযুক্ত যোগ্যতা থাকলে একজন প্রার্থী একাধিক প্রতিষ্ঠানে একাধিক পদে আবেদন করতে পারবেন। NTRCA ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করা যাবে

  • রেজিস্ট্রেশন পরীক্ষায় নম্বর বেশি হলে বা মেরিট পজিশন আগে না থাকলে ভালো প্রতিষ্ঠানে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা কম। সেক্ষেত্রে আরও আবেদনের প্রয়োজন হতে পারে।
  • নিজ এলাকায় এবং কম দূরের প্রতিষ্ঠানগুলোকে পছন্দের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে হবে। যাদের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সমস্যা আছে এবং যারা নারী প্রার্থী তাদের জন্য এটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।
  • প্রতিষ্ঠানের অবস্থা, কাজের পরিবেশ, শিক্ষার্থীর সংখ্যা, আর্থিক স্বচ্ছলতা এবং শিক্ষকদের সুযোগ-সুবিধা ইত্যাদি সন্তোষজনক কিনা তা জানতে হবে। শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম হলে প্রাতিষ্ঠানিক সুযোগ-সুবিধাও কম।
  • আবেদনের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত পদটি এমপিও নিবন্ধিত কিনা এবং কতক্ষণ সময় লাগতে পারে তা নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন।
  • কোনো কারণে নন-এমপিও পদে আবেদন করতে চাইলে জেনেশুনে করতে হবে। কারণ, সরকারি আদেশ সত্ত্বেও অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের নন-এমপিও শিক্ষকদের কম আর্থিক সুবিধা দেওয়া হয়।
  • দূরের কোনো প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে হলে ওই প্রতিষ্ঠান ও এলাকা সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। সেখানে যাতায়াত সুবিধা আছে কি না, থাকার ব্যবস্থা আছে কি না, নিরাপত্তার ব্যবস্থা আছে কি না, ছুটিতে আত্মীয়-স্বজনের সাথে দেখা করা সম্ভব কি না বা প্রয়োজনে খোঁজ নিতে হবে।
  • যে গ্রামে বা শহরে বসবাস করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, সেই প্রতিষ্ঠানকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। একটি শহরে অবস্থিত একটি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করার সময়, মনে রাখবেন যে একটি শহরে অবস্থিত একটি প্রতিষ্ঠানে বেতন-ভাতা একটু বেশি হলেও জীবনযাত্রার খরচ অনেক বেশি।
  • স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, কারিগরি এবং ব্যবসায়িক ব্যবস্থাপনা সংস্থাগুলির মধ্যে, আপনার বিবেচনা করা উচিত কোন ধরনের সংস্থার সাথে আপনি সবচেয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বা অস্বস্তি বোধ করবেন।
  • যে পদে আবেদন করবেন সেই পদের বেতন স্কেল, বর্তমান মূল বেতন, অন্যান্য ভাতার পরিমাণ, বেতন বৃদ্ধির পরিমাণ, পদোন্নতির সুযোগ, অবসরের সুযোগ-সুবিধা—এসব বিষয় জানতে হবে।
  • একটি বহু-স্তরীয় সংস্থায় একটি পছন্দসই পদে যোগদানের ক্ষেত্রে, একজনকে কোন স্তরে ক্লাস নেওয়া উচিত এবং সেই স্তরে ক্লাস নেওয়ার ইচ্ছা এবং যোগ্যতা আছে কিনা তা বিবেচনা করা উচিত।
  • আধুনিক শিক্ষাদানে কাজের পরিধি কী, পড়াশোনায় লেগে থাকা ভালো কি না, একজন শিক্ষকের দায়িত্ব ও কর্তব্য কী এবং কাজের সময় ছুটি নেওয়ার বিধান কী, অন্যান্য পেশার তুলনায় সুযোগ-সুবিধা কী কী, এই পেশা কি একজনের যোগ্যতা ও মানসিকতার সাথে খাপ খায়? , ইত্যাদি বুঝতে হবে।
  • সংগঠন পরিবর্তনের ক্ষেত্রে বর্তমান প্রতিষ্ঠানের অবস্থা ও অবস্থানের চেয়ে কাঙ্ক্ষিত প্রতিষ্ঠানের অবস্থা ও অবস্থান ভালো কি না এবং সেখানে গেলে পরিবর্তনের উদ্দেশ্য পূরণ হবে কি না তা জানা উচিত।

বর্তমানে সরকারি মাধ্যমিক পর্যায়ে একজন সহকারী শিক্ষকের মূল বেতন ১২ হাজার ৫০০ টাকা। উচ্চ মাধ্যমিক এবং স্নাতক পর্যায়ে একজন প্রভাষকের মূল বেসিক বেতন ২২,০০০ টাকা। এ ছাড়া সব স্তরের শিক্ষকদের সর্বোচ্চ বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি ৫ শতাংশ, বাড়ি ভাড়া ভাতা ১০০০ টাকা, চিকিৎসা ভাতা ৫০০ টাকা, উৎসব ভাতা ২৫ শতাংশ, বাংলা নববর্ষ ভাতা ২০ শতাংশ। 

আরও পড়ুনঃ আল্লাহু আকবার |  শ্লোগানে মুখরিত সারা বিশ্ব

মূল বেতনের ১০ শতাংশ অবসর ও কল্যাণ তহবিলে জমা করা হয়। ২৫ বছরের নিয়মিত চাকরির পর অবসর গ্রহণ করলে কল্যাণ ও অবসর তহবিল থেকে সর্বশেষ মূল বেতনের প্রায় ১০০ গুণ পাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। এসব সরকারি সুযোগ-সুবিধার বাইরে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার বিষয়টি প্রতিষ্ঠানের নিয়মের ওপর নির্ভর করে

উপরে সকল বিষয় আপনাদের উপকার কারার জন্য দেওয়া আছে যদি কিছু ভুল হয় তাহলে আমাকে কমেন্ট করে যানাতে পারেন কারণ মানুষ মাত্র ভুল হয়। আর যদি আমর ওয়েব সাইট টি ভালো লেগে থাকে তবে চাইলে পাশে থাকতে পারেন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

রেডিও স্বাধীন দেশ কী রেডিও স্বাধীন দেশ কেন জানতে আমদের সাইটি ভিজিট করুন