রেডিও স্বাধীন দেশ https://www.radioshadhindesh.com/2022/01/blog-post_18.html

খাওয়ার সময় সালাম দেওয়া জাবে কী

প্রশ্নঃ সালাম আলাইকুম শাইখ, এটা কি সুন্নাহর কোথাও প্রমাণিত হয়েছে যে, যারা খাবার খাচ্ছে তাদের সালাম দেওয়া উচিত নয়, কেউ সালাম দিলেও তাদের জবাব দেওয়া উচিত নয়। কেননা কেউ কেউ খাবার খাওয়ার সময় সালাম বলা নিষেধ বললেও এরা খাওয়ার সময় অপ্রয়োজনীয় সব কথা বলে। দয়া করে কুরআন ও সুন্নাহর মাধ্যমে ব্যাখ্যা করুন। আল্লাহ হাফিজ

খাওয়ার সময় সালাম দেওয়া জাবে কী

সালাম দেওয়া সুন্নত এবং উত্তর দেওয়া ওয়াজিব। আমাদের অনেকেরই সালাম দিতে গিয়ে বা সালামের উত্তর দিতে গিয়ে অজান্তেই ভুল হয়ে যায়। সালাম একটি দুআ। এর সহীহ উচ্চারণের প্রতি গুরুত্ব দেয়া জরুরি।

সকল প্রশংসার মালিক আল্লাহ.
খাওয়ার সময় কথা বলা নিষিদ্ধ বলে নবীর সুন্নাতে এমন কিছু নেই। কারো কারো কাছে জনপ্রিয় উক্তি যে, "খাবার নিয়ে কোনো সালাম ও কথা বলা নেই" শরী‘আতে কোনো ভিত্তি নেই।

এটা প্রমাণিত যে, নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) খাওয়ার সময় কথা বলতেন
আল-বুখারী (৩৩৪০) এবং মুসলিম (১৯৪) এ বর্ণিত আছে যে আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন: একদিন আল্লাহর রাসূল (সঃ)-এর কাছে কিছু গোশত আনা হল এবং সামনের পাটি, যা তিনি পছন্দ করতেন, তাকে অর্পণ করা হল। তিনি একটি কামড় নিলেন, তারপর বললেন: “আমি কেয়ামতের দিন মানবজাতির নেতা হব। কেন যে হয় আপনি কি জানেন? … তারপর তিনি সুপারিশ সম্পর্কে দীর্ঘ হাদীছ উদ্ধৃত করেন।

সহীহ মুসলিমে (২০৫২) জাবির ইবনে আবদ-আল্লাহ থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাঁর পরিবারের কাছে মসলা চাইলেন এবং তারা বললেনঃ আমাদের কাছে ভিনেগার ছাড়া আর কিছুই নেই। তিনি এটির জন্য ডাকলেন এবং তিনি এটি খেতে শুরু করলেন, বললেন: "কী ভাল মশলা ভিনেগার, কী ভাল মশলা ভিনেগার।"
আল-নাওয়াবী বলেন: এটি দেখায় যে, খাওয়ার সময় কথা বলা মুস্তাহাব, যাতে ভোজনরসিকদের আরাম হয়।

শরহে ছহীহ মুসলিমের শেষ উদ্ধৃতি (১৪/৭)
সমস্ত নিখুঁত প্রশংসা বিশ্বজগতের পালনকর্তা আল্লাহর জন্য। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া ইবাদতের যোগ্য কেউ নেই এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর বান্দা ও রাসূল।
এমন একটি কথা রয়েছে যা সাধারণ লোকদের মধ্যে ব্যাপকভাবে প্রচলিত যারা এটিকে একটি হাদীছ বলে উল্লেখ করে যার বাণী হল "খাওয়ার সময় কোন সালাম (অর্থাৎ সালাম নেই)"। 

যাইহোক, এটি একটি হাদিস নয় যেভাবে আলেমগণ বলেছেন আল্লাহ তাদের উপর রহম করুন। আল-আজলূনী তাঁর উপর রহমত বর্ষণ করেন তাঁর "কাশফ আল-খাফা' গ্রন্থে: "খাওয়ার সময় সালাম নেই।" হাদীছ নয়।"

চলুন জেনে নিই যে সময়গুলোতে সামাল দেয়া উচিত নয়।
  •  নামাজ পড়া অবস্থায় কোনো ব্যক্তিকে সালাম দেয়া উচিত নয়। কারণ নামাজের অবস্থায় ওই ব্যক্তি এর উত্তর দিতে পারবেন না। উত্তর দিলে নামাজ ভেঙে যাবে।💝
  • কেউ প্রশ্রাব-পায়খানা করছে এমতাবস্থায় তাকে সালাম দেয়া যাবে না। কারণ তখন জবাব দেয়ার কোনো উপায় নেই। সালামও এক ধরনের জিকির। প্রশ্রাব-পায়খানার সময় জিকির করা যাবে না।
  •  ওজুরত অবস্থায় কাউকে সালাম দেয়া যাবে না। এতে তার ওজুর মনোযোগ নষ্ট হবে; ওজুতে ভুলও হতে পারে।💝
  •  কেউ খাবার খাচ্ছে এমতাবস্থায়ও সালাম দেয়া যাবে না। এ সময় সালাম দিতে নিষেধ করা হয়েছে হাদিসে।💝
  • কোরআন তেলাওয়াত করা অবস্থায় কোনো ব্যক্তিকে সালাম দেয়া উচিত নয়।💝
  •  জিকির ও মোরাকাবারত ব্যক্তিকে সালাম দেয়া উচিত নয়।💝
  •  ওয়াজ ও নসিহত শোনা অবস্থায় সালাম দেয়া উচিত নয়।💝
  •  দ্বীনি শিক্ষার মজলিসে মশগুল ব্যক্তিকে সালাম দেয়া উচিত নয়।💝
  •  আজানরত অবস্থায় মুয়াজ্জিনকে সালাম দেয়া যাবে না।💝
  •  কেউ কোনো জরুরি হিসাব-নিকাশে ব্যস্ত তখনও সালাম দেয়া যাবে না। সালামের উত্তর দেয়া যেহেতু ওয়াজিব এজন্য যাকে সালাম দেয়া হচ্ছে তার অবস্থাটি বিশেষ বিবেচনায় রাখাই হচ্ছে সালামের মূল আদব।💝
তাই আমরা আমাদের সমাজে, পরিবারে, অফিসে সালামের প্রচলন করব। সেই সাথে আমরা ইসলামকে মেনে চলব। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।
অমুসলিমকে সালাম দেওয়ার বিধান কী? এবং তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করা কি জায়েজ?
অমুসলিমকে ‘সালাম’ দেওয়া বৈধ নয়। কোনো প্রয়োজনে দিতে হলে ‘আসসালামু আল মানিত্তাবাআল হুদা’ বলবে। আর অমুসলিমরা সালাম দিলে তদুত্তরে শুধু ‘ওয়া আলাইকুম’ বলবে।

বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে মুসলিমদের ওপর অমুসলিমদের প্রাধান্য দেওয়া নিন্দনীয়। তবে তাদের সঙ্গে যাবতীয় লেনদেন, সদাচরণ ও সাধারণ সম্পর্ক রাখা বৈধ। (সুরা মায়েদা, আয়াত : ৫১, সুরা আল ইমরান, আয়াত : ১১৮, আল বাহরুর রায়েক : ৮/৩৭৪, ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়া : ১৯/৫৪৫, ফাতাওয়ায়ে ফকিহুল মিল্লাত : ১২/১০৩

নীতিগতভাবে, সালামের সূচনা করা এবং যিনি সালাম দিয়েছেন তাকে সাড়া দেওয়া আইনী। সালাম শুরু করা একটি সুন্নত (প্রস্তাবিত) এবং যিনি সালাম দিয়েছেন তার জবাব দেওয়া একটি ওয়াজিব, এই বিষয়ে একজন ব্যক্তি সাধারণ প্রমাণের জন্য খাচ্ছেন কি না, যেমন আল্লাহর বাণী (যার অর্থ হল:) {আর যখন তোমাকে সালাম দেওয়া হয়, তখন তার চেয়ে উত্তম দ্বারা সালাম কর অথবা [অন্তত] [অনুরূপভাবে] প্রত্যাবর্তন কর। নিঃসন্দেহে আল্লাহ সর্ববিষয়ে হিসাবরক্ষক।} (কুরআন ৪:৮৬)

আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন যে, এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞেস করলেন, ''ইসলামে সর্বোত্তম কোনটি? তিনি [নবী (সাঃ)] বলেছেন: "মানুষকে খাওয়ানো এবং যাদেরকে আপনি জানেন এবং যাদেরকে আপনি জানেন না তাদের সালাম করা। [আল-বুখারী ও মুসলিম]

নীতিগতভাবে, একজনকে সাধারণ প্রমাণে লেগে থাকা উচিত যদি না এমন প্রমাণ থাকে যা এটি নির্দিষ্ট করে। যাইহোক, কিছু আলেম, যেমন আন-নওয়াবী আল্লাহ রহমত করেছেন বলেছেন যে পূর্ববর্তী বক্তব্যের একটি সঠিক অর্থ রয়েছে যদি কোন ব্যক্তির মুখে খাবার থাকা অবস্থায় হাত মেলানো বা সালামের জবাব দেওয়া হয়।

সালাম সর্বাবস্থায় আদান-প্রদান করা যায়। রাসূল (ছাঃ) ছালাতরত অবস্থাতেও হাতের ইশারায় সালামের উত্তর দিতেন (আবুদাউদ হা/৯২৬, তিরমিযী হা/৩৬৭, মিশকাত হা/৯৯১)। কেবল পেশাব-পায়খানার সময় তিনি সালামের উত্তর দিতেন না, বরং বের হয়ে উত্তর দিতেন (যদি সেই ব্যক্তি মওজুদ থাকত) (বুখারী হা/৩৩৭, আবুদাঊদ হা/১৭, মিশকাত হা/৪৬৭, ৫৩৫)।

খাওয়ার সময় সালাম দেওয়া জায়েজ, আবার সালামের জবাব দেওয়াও জায়েজ। কারণ, খাওয়ার সময় অন্য সব কথা বলা হচ্ছে। সব কথা বলা জায়েজ রয়েছে, তাহলে সালাম দেওয়া কেন নিষেধ থাকবে। কে বা কারা নিষেধ করেছে সালাম দিতে? বলা হয়, আপনি খাওয়া-দাওয়া করছেন, তাই সালাম দিতে পারলাম না। এ ক্ষেত্রে কথা কিন্তু বলা হয়েই গেল। এটি আমাদের একটি ভুল কাজ এবং ভুল ধারণা।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন, 
«لا تدخلوا الجنة حتى تؤمنوا ولا تؤمنوا حتى تحابوا ألا أدلكم على شيء إذا فعلتموه تحاببتم؟ أفشوا السلام بينكم» 
“তোমরা ততক্ষণ পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হবে না। আর ততক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা একে অপরকে ভালবাসবে না, আমি কি তোমাদের এমন একটি জিনিস বাতলায়ে দেব, যা করলে তোমরা পরস্পর পরস্পরকে ভালো বাসবে? এ কথার উত্তরে তিনি বললেন, তোমারা বেশি বেশি করে সালামকে প্রসার কর। মুসলিম”  । 

একজন মুসলিম যখন অপর মুসলিমকে সালাম দেবে, তখন তার জবাবে লোকটি তার মতই সালাম দ্বারা উত্তর দেবে অথবা তার চেয়ে উত্তম কথা দ্বারা সালামের উত্তর দেবে। তার উপর তার অপর ভাইয়ের সালামের উত্তর দেয়া ওয়াজিব।

আল্লাহ্ তা‘আলা এ বিষয়ে বলেন,
﴿وَإِذَا حُيِّيتُم بِتَحِيَّةٖ فَحَيُّواْ بِأَحۡسَنَ مِنۡهَآ أَوۡ رُدُّوهَآۗ ٨٦﴾ [النساء: ٨٦]
“আর যখন তোমাদেরকে সালাম দেয়া হবে তখন তোমরা তার চেয়ে উত্তম সালাম দেবে। অথবা জবাবে তাই দেবে”। [সূরা নিসা, আয়াত: ৮৬]
এটি হল, মুসলিম উম্মাহর অভিবাদন ও সম্ভাষণ যা ইসলাম মুসলিম উম্মাহর জন্য নিয়ে এসেছে। 

আল্লাহ্ তা‘আলা আরও বলেন
﴿تَحِيَّةٗ مِّنۡ عِندِ ٱللَّهِ مُبَٰرَكَةٗ طَيِّبَةٗۚ ٦١﴾ [النور: ٦١]
আল্লাহর পক্ষ থেকে বরকতপূর্ণ ও পবিত্র অভিবাদনস্বরূপ। [সূরা নূর, আয়াত: ৬১]

কিন্তু ইয়াহূদী ও খৃষ্টানদের অভিবাদন মুসলিমদের অভিবাদনের চেয়ে ভিন্ন ও ব্যতিক্রম। ইয়াহূদীদের অভিবাদন হল, হাতের আঙ্গুল দিয়ে ইশারা করা আর খৃষ্টানদের অভিবাদন হল, হাতের তালু দিয়ে ইশারা করা। আর আমাদেরকে খৃষ্টান ও ইয়াহূদীদের অনুকরণ ও তাদের সাদৃশ্য অবলম্বন করতে নিষেধ করা হয়েছে এবং সালাম দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন, 
«ليس منا من تشبه بغيرنا، لا تشبهوا باليهود ولا بالنصارى فإن تسليم اليهود الإشارة بالأصابع وتسليم النصارى الإشارة بالأكف» 
“যে ব্যক্তি অমুসলিমদের সাথে সাদৃশ্য রাখে, সে আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয়। তোমরা ইয়াহূদী ও খৃষ্টানদের সাথে সদৃশ অবলম্বন করো না। কারণ ইয়াহূদীদের অভিবাদন হল, আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করা আর খৃষ্টানদের অভিবাদন হল, হাতের তালু দিয়ে ইশারা করা”  ।
 
রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ আরও বলেন,
«لا تبدءوا اليهود ولا النصارى بالسلام»
 “তোমরা ইয়াহূদী ও খৃষ্টানদের প্রথমে সালাম দেবে না”  । 

রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ আরও বলেন
«من تشبه بقوم فهو منهم»
“যে ব্যক্তি কোন সম্প্রদায়ের লোকদের সাথে সদৃশ রাখে, সে তাদের অন্তর্ভুক্ত ।” 
আর আল্লাহ্ তা‘আলা নিজে সালাম; তার থেকেই সালাম। দুনিয়া ও আখিরাত উভয় জগতে মুসলিম উম্মাহর অভিবাদন হল সালাম।

আল্লাহ্ তা‘আলা বলেন, 
﴿تَحِيَّتُهُمۡ يَوۡمَ يَلۡقَوۡنَهُۥ سَلَٰمٞۚ وَأَعَدَّ لَهُمۡ أَجۡرٗا كَرِيمٗا ٤٤﴾ [الاحزاب: ٤٤]  
“যেদিন তারা তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করবে সেদিন তাদের অভিবাদন হবে: ‘সালাম’। আর তিনি তাদের জন্য প্রস্তুত রেখেছেন সম্মানজনক প্রতিদান”। [সূরা আহযাব, আয়াত: ৪৪]  

﴿ لَا يَسۡمَعُونَ فِيهَا لَغۡوٗا وَلَا تَأۡثِيمًا ٢٥ إِلَّا قِيلٗا سَلَٰمٗا سَلَٰمٗا ٢٦ ﴾ [الواقعة: ٢٥،  ٢٦]  
“তারা সেখানে শুনতে পাবে না কোন বেহুদা কথা, এবং না পাপের কথা; শুধু এই বাণী ছাড়া, সালাম, সালাম”। [সূরা ওয়াকেয়া, আয়াত: ২৫, ২৬]

জান্নাতে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ও ফেরেশতারা মুমিনদের সালাম দেবেন। এ ছাড়া মুমিনরাও জান্নাতে একে অপরকে সালাম দেবে। অথচ সেখানে তারা যাবতীয় বিপদ-আপদ থেকে মুক্ত। কোনো এক কবি বলেন, 
الدار دار سلامة  وخطابهم فيها سلام
واسم ذي الغفران
“ঘরটি হল, শান্তির ঘর, তারপরও তাতে তাদের সম্ভাষণ হবে সালাম এবং মহা ক্ষমাশীল আল্লাহর নাম”।
হে মুসলিম ভাইয়েরা! যেহেতু ইসলাম হল, মহব্বত, ভালোবাসা, ভ্রাতৃত্ব, উত্তম পরিণতি, স্থায়ী শান্তি ও পরিপূর্ণ সম্মান লাভের দ্বীন, সেহেতু আমরা যারা মুসলিম তাদের জন্য ইসলামের শিক্ষাকে বাস্তবায়ন করা, ইসলামের বিধান অনুযায়ী আমল করা এবং ইসলামের প্রদর্শিত পথ ও নির্দেশনা অনুযায়ী জীবনকে পরিচালনা করা খুবই জরুরি। 

হে আল্লাহ ! তুমি নিজেই শান্তি, তোমার থেকেই শান্তি। হে প্রভু! তুমি আমাদের শান্তিতে বেঁচে থাকার তাওফিক দাও, যাবতীয় অপকর্ম ও অপরাধ থেকে আমাদের রক্ষা কর। আর সালাত ও সালাম নাযিল হোক আমাদের নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ এর উপর, তার পরিবার-পরিজনের উপর এবং তার সমগ্র সাহাবীদের উপর ।

কানে আনন্দদায়ক শব্দগুলি এর সত্যতার জন্য একটি চিহ্ন নয়। কয়েক বছর ধরে মাওলানা তারিক জামীল সাহাবকে মাদারিসের ছাত্রদের জন্য এটি লিখতে দেখা যায়। এবং তারপর তার প্রতি অ্যাক্রিপশনের মাধ্যমে সবাই একই কাজ শুরু করেছে। আসলে বাস্তবতা হলো হাতে খাওয়া মানেই মাসনুন। নিজে ভাত খাওয়ার সময় মাসনুন নয়। উভয়কে যোগ করা এবং হাত দিয়ে ভাত খাওয়া সুন্নাত নয় তা প্রমাণ করা একটি মিথ্যা উপমা মাত্র। 

হাত দিয়ে খাওয়া হলে মাসনুন হয়। তারপর ভাত খাওয়া হলেও তার জন্য হাত ব্যবহার করাও মাসনুন বলে গণ্য হবে।যেহেতু এইভাবে ভাত খাওয়া মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় তাহলে এই সমস্যা সব খাবারেই থাকে। এটা শুধু ভাতের সাথে নির্দিষ্ট নয়। চাপাতি এমনভাবে গ্রেভিতে ডুবিয়ে রাখা যাতে এর ফোঁটা হাত ও জামাকাপড়ে ছড়িয়ে পড়ে বা এমন কোনো খাওয়ার ধরন যা মানুষকে বিমুখ করে, তাও সুন্নাত পরিপন্থী বলে গণ্য হবে।

কিন্তু বাস্তবতা হলো নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন কুমড়ো খেতেন তখন আঙ্গুল দিয়ে তার অবশিষ্টাংশ খুঁজে বের করতেন। সুতরাং সুন্নত হওয়া উচিত যে আমরাও কুমড়া খাওয়ার সময় এই পদ্ধতি অবলম্বন করি। তাছাড়া, খুব কমই তার খাওয়ার জন্য মাংস থাকত কিন্তু যখন সে পাবে, তখন সে তার কুকুর/দাঁত ব্যবহার করে এর টুকরো ছিঁড়ে ফেলত। তাই সুন্নাহও সে অনুযায়ী হতে হবে। এখন যদি এই কাজটি অত্যাধুনিক মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে দেয়, তাহলে এর সমাধান কী হবে?

অবশেষে, কে বলে ভাতের উপরে এত গ্রেভি যোগ করতে যে এটি দেখতে অদ্ভুত লাগে। ঠিকমতো খাওয়া গেলে ভাতও হাত দিয়ে খাওয়া যায় খুব পরিশীলিত পদ্ধতিতে। তবে, শুধুমাত্র হাতে খাওয়ার উপর জোর দেওয়া উচিত নয়। বরং কেউ যদি চামচ দিয়ে খায় তাহলে সেটাও ভালো, কিন্তু সে যদি বুদ্ধিমত্তার সাথে তার হাত ব্যবহার করে তাহলে এই কাজটিকেও নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর প্রতি ভালোবাসা বলে প্রশংসা করতে হবে।

ভোজনরসিকদের স্বাচ্ছন্দ্যে রাখা, যা ইমাম আল-নওয়াবী (রহঃ) এখানে উল্লেখ করেছেন, এটি এমন একটি বিষয় যা আরবদের মধ্যে সুপরিচিত এবং প্রচলিত, কারণ এটি অতিথিকে সম্মান করার এবং মানুষের সাথে কথা বলার জন্য উদারতা দেখানোর অংশ। যখন তারা খাচ্ছে, বিশেষ করে অতিথিরা।
ইবনুল কাইয়্যিম বলেন: নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) খাওয়ার সময় কথা বলতেন, 

যেমনটি উপরে ভিনেগার সম্পর্কে হাদিসে দেখা গেছে এবং যেমনটি তিনি তাঁর সৎপুত্র উমর ইবনে আবি সালামাকে বলেছেন, যিনি খেতেন। তিনি বলেছেন: "আল্লাহর নাম স্মরণ কর এবং যা তোমার নিকটতম তা থেকে খাও।" জাদ আল-মাআদ,২/৩৬৬ থেকে শেষ উদ্ধৃতি

এই হাদীছে খাওয়ার সময় কথা বলা জায়েয হওয়ার প্রমাণ রয়েছে। যে হাদীছগুলোতে খাওয়ার সময় কথা বলার আদেশ বা তা করতে নিষেধের কথা বলা হয়েছে, সেগুলোর কোনোটিই সহীহ নয়

আল-হাফিজ আল-সাখাওয়ি বলেছেন: আমি এটি সম্পর্কে কিছু জানি না, হয় এটি নিষিদ্ধ বা অনুমোদন। শেষ উদ্ধৃতি। আল-মাকাসিদ আল-হাসানাহ, পৃ. ৫১০

শাইখ আল-আলবানী (রহঃ) বলেছেন: খাওয়ার সময় কথা বলা খাওয়া না খাওয়ার মত কথা বলা ভাল কথা বলা ভাল এবং খারাপ কথা বলা খারাপ। সিলসিলাহ আল-হুদা ওয়াল-নূর, টেপ নং থেকে শেষ উদ্ধৃতি। ১৫/১
আর আল্লাহই ভালো জানেন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

রেডিও স্বাধীন দেশ কী রেডিও স্বাধীন দেশ কেন জানতে আমদের সাইটি ভিজিট করুন