Radio Shadhin Desh https://www.radioshadhindesh.com/2022/01/Violence-is-a-very-dangerous-thing.html

হিসংসা করা অত্যন্ত বিপদজনক একটি বিষয়

হিসংসা করা অত্যন্ত বিপদজনক একটি বিষয় — আল্লাহর সুবহানাহু তালা আমাদের হিংসা থেকে বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুক। আল্লামা ইবনে উসাইমীন রাহমাতুল্লাহ সহীহুল বুখারীর (১/২৭৬)বলেছেন হিংসা করা নাজায়েজ এমনকি যদিও সে কাফের হয়। কেননা হিংসা আল্লাহ তায়ালার অপোর তাকদীর এবং ফায়সালা বিরুদ্ধে কাজ করা হয়। এই কথা দ্বারা আমরা বুঝতে পারি যেকোনো পরিস্থিতিতে আমাদের হিংসা করা যাবে না। হুকুম আহকাম সবকিছু আমাদেরকে মানতে হবে। তাই আমরা চাই আল্লাহর জান্নাত

হিসংসা করা অত্যন্ত বিপদজনক একটি বিষয়

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণীঃ ''রাসুল (সাঃ) বলেছেনঃ হিংসা এমন একটা জিনিস যা আপনার আগে-পরের সকল ইবাদত নষ্ট করে দেয়''। "রাসুল (সাঃ) বলেছেনঃকৃপণতা হলো একই প্রকারের, আর তাদের মূল্য হল খারাপ ধারণা পোষণ করা। (এলালুশ সারায়ে,পৃষ্ঠা ১৪৪, হাদিস নাম্বার ১৫০৫)

কোরআনের কথাঃ "এবং হিংসুকের অনিষ্ট থেকে যখন সে হিংসা করে" (সূরা ফালাকঃ৫)। ইমাম সাদিক (আ) বলেছেনঃ অপরের সাথে হিংসা করা থেকে বিরত থাকো কেননা হিংসা হল কুকুরের ভিত্তি স্বরুপ।(আল কাফি খন্ড নাম্বারঃ৮,পৃষ্ঠা নম্বর ৮,হাদিস নাম্বার ১)

সঠিক কথাঃ পাপ মানুষের অধঃপতনের অন্যতম কারণ হিসেবে পরিগণিত হয় যেহেতু পাপ একটি নৈতিক ত্রুটি। এই বিষয়টির ওপর আলোচনা করা খুবই প্রয়োজন আর তাই এখানে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। 

আল্লাহর যে নিয়ামত দান করেছেন তার শুকরিয়া কখনোই সে আদায় করে না বরং আল্লাহ তা'আলা যা দান করেননি তার চেয়ে বেশি চায় এবং যদি সেটা পূর্ণ হয।তাহলে সে আবার নতুন করে একই জিনিস প্রতিবার সৃষ্টি করে। উদাহরণস্বরূপ একজন ব্যক্তি একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে,যদি তার হিংসা হয় এবং আল্লাহর শোকর গুজার না হয় সব সময় তার ওই চিন্তা থেকে যায় যে,আরো উন্নত একটি বাড়ি ভাড়া নিতে হবে। যখন সে পূর্বের চেয়ে আরো উন্নত পায় তখন সে বলে আরো উন্নত লাগবে। তখন সে আবার নতুন করে অন্যের সম্পত্তির দিকে দৃষ্টি দেবে। এবার সে বলবে অমুকের মত যদি একটি বাড়ি বানাতে পারতাম। তাই দুনিয়ার মানুষের চাহিদার কোন শেষ নাই যত পাই তত চাই। 

উপসংহারঃ আল্লাহ তাআলা বলছেনঃ "দুনিয়ার মানুষ শোন তোমরা আমাকে ডাকো আমি আল্লাহ তাআলা তুমি ডাকলেই আমার ডাকে সাড়া দিব। আজ আমরা আল্লাহ তাআলাকে ডাকতে জানি না। রাতের ৩ টি ভাগের শেষ ১ অংশে এসে আল্লাহ তাআলা শেষ আসমানে নেমে আসে এবং সকল মানুষের উদ্দেশ্য আল্লাহ এ কথা বলতে থাকে " তোমাদের কারো রিজিক লাকবে তোমরা চাও আমি আল্লাহ তাআলা তোমাদের রিজিক বাড়িয়ে দিব"

"তোমাদের কারো বড় বাড়ি লাকবে তোমরা চাও আমি আল্লাহ তাআলা তোমাদের বড় বাড়ি দিব" "তোমাদের কারো চাকুরী লাকবে তোমরা চাও আমি আল্লাহ তাআলা তোমাদের চাকুরী  দিব" তোমাদের কারো বউ লাকবে তোমরা চাও আমি আল্লাহ তাআলা তোমাদের বউ দিব" কিন্তু আমরা আল্লাহ তাআলা কে ডাকতে জানি না। আল্লাহ তাআলা আপনাকে সুস্থতা দান করুক এবং দ্বীনি ভাইদের আল্লাহ তাআলা কবুল করুন। দ্বীনের পথে কাজ করার তৌফিক দান করুক।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?