রেডিও স্বাধীন দেশ https://www.radioshadhindesh.com/2021/10/gastric.html

গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় - গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয় - গ্যাস্ট্রিক এর সমাধান

আপনারা কি গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় সম্পর্কে জানতে চান? তাহলে আজকের এই পোস্টটি আপনাদের জন্য। আজকে আমরা আলোচনা করব গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয়, গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় এবং গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কেন হয় , গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় বাংলাদেশ , গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় আরবি ২০২২ এ সম্পর্কে। গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় সর্বশেষ আপডেট নিয়ে সাজানো হয়েছে আমাদের আজকের এই পোস্টটি পড়ে জেনে নিন গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় তার সব কিছু, গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা, গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথার কারণ, গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কীভাবে ভালো করা যাই এ সম্পর্কে।

গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয়


গ্যাস্ট্রিকের সাথে এখন কম বেশি সবাই পরিচিত। কারন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা নেই বা গ্যাস্ট্রিক নেই এমন মানুষ খুব কমই আছে। এটি একটি অসহ্যকর অসুখ কারন গ্যাস্ট্রিকের কারনে পেট ফুলে থাকা, পেটে ব্যাথা হওয়া, বুকে ব্যাথা হওয়া সহ নানা রকম সমস্যা দেখা যায়। যে কারনে যাদের অতিরিক্ত তেল এবং ভাজাপোড়া জাতীয় খাবার বেশি খাওয়া হয় তাদের জন্য প্রতিদিনের একটি যন্ত্রনাদায়ক সমস্যা এটি।

কারন অতিরিক্ত গ্যাস এর কারনে পায়খানাও ক্লিয়ার হতে চায় না। বা পায়খানা নাও হতে পারে তাই যারা এ সমস্যা ভুগছে সবার একটাই প্রশ্ন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায় কি? আজ আপনাদের মাঝে তুলে ধরন কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেমন গ্যাস্ট্রিকের ব্যাথা সরিরের যে সব যায়গায় হতে পাড়ে এবং আরো যে সব সমস্যা হতে পাড়ে তা নিয়ে বিস্তারিত। 

গ্যাস্ট্রিক কেন হয় | গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয়

  • গ্যাস্ট্রিক নানা রকম খাবারের জন্য হতে পাড়ে এর মধ্যে কয়েকটি হচ্ছে -
  • অতিরিক্ত এলকোহলের ব্যবহার। 
  • দীর্ঘদিন ধরে ব্যাথা নাসক ঔষধ সেবন। 
  • ভাজাপোড়া খাওয়া 
  • তৈলাক্ত এবং অতিরিক্ত মসলা জাতীয় খাবার খাওয়া
  • সময় মত না খাওয়া ইত্যাদি। 

গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় | গ্যাস্ট্রিক এর সমাধান

গ্যাস্ট্রিক হলে পেটের ওপরের দিকে সারা দিন অল্প অল্প ব্যথা হয়, পেটে জ্বালাপোড়া করে, অনেক সময় বুক জ্বলা বা বুকে ব্যাথাও হতে পাড়ে।

গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয় | গ্যাস্ট্রিক এর সমাধান

গ্যাস্ট্রিকের কারনে অনেক রকম সমস্যা হতে পারে তার মধ্যে যে সব সমস্যা বেশি ভোগায় তার মধ্যে কয়েকটি হচ্ছে 

  • বদহজম 
  • পেটে ব্যাথা, 
  • অসুস্থ বোধ করা বা অসুস্থ হয়ে যাওয়া
  • খাওয়ার পড়ে অসুস্থ লাগা
  • বমি ভাব বা পেটে অসস্থি ভাব
  • অতিরিক্ত গ্যাস হওয়া
  • পায়খানা ক্লিয়ার না হওয়া
  • বুকে জালা পোড় ইত্যাদি।

চিরতরে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায় | গ্যাস্ট্রিক এর সমাধান

গ্যাস্ট্রিক নিয়ন্ত্রনের মাধ্যম হিসেবে সবাই ট্যাবলেট বা ক্যাপসুলকেই বেছে নেয়। হয়ত কিছু সময় ঠিক থাকে বা কিছু দিন ঠিক থাকে তারপর আবার সেই সমস্যা দেখা দেয় কারন আমরা গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ খাচ্ছি ঠিকই কিন্তু সে সব খাবারের কারনে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয় সেসব খাবার প্রতিনিয়ত খেয়েই যাচ্ছি। তাই গ্যাস্ট্রিক নিয়ন্ত্রনের জন্য খাবারের কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। 

গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি খাওয়া যাবে না | গ্যাস্ট্রিক এর সমাধান

অতিরিক্ত এলকোহল ত্যাগ করতে হবে। আমরা বেড় হলেই চোখের সামনে নানা রকম ভাজাপোড়া যেমন ফুচকা, চটপটি, পুড়ি, সিজ্ঞারা, ইত্যাদি সহ নানা খাবারের প্রতি আকর্ষণ চলে যায় কিন্তু এগুলো নিয়মিত খাওয়ার কারনে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দেয়। তাই এসকল ভাজাপোড়া খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। তার সাথে সাথে তৈলাক্ত খাবার এবং অতিরিক্ত মসলা জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। ৬-৭ দিনের বেশি সমস্যা দেখা দিলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

গ্যাস্ট্রিক রোগীর খাবার তালিকা | গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয়

গ্যাস্ট্রিক রোগীর খাবারের উপর বিশেষ নজর দিতে হবে। কারন এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি পেতে। গ্যাস্ট্রিক রোগীর যেসব খাবার বেশি বেশি খাইয়া উচিৎ তার মধ্যে কিছু খাবারের তালিকা - শসা, দই, পেঁপে, কমলা, কলা, আদা, ঠান্ডা দুধ, দারুচিনি, জিরা, লবঙ্গ, এলাচ, পুদিনা পাতার পানি, আমড়া, মৌরির পানি, ইত্যাদি। 

গ্যাস্ট্রিক এর ঔষধ | গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয়

সমস্যা বেশি মনে হলেও প্রথম অবস্থায় নিজের ইচ্ছামত বেশি পাওয়ার এর ঔষধ খাওয়া যাবে না। ফার্মেসিতে বা কোন ডাক্তারের সাথে আপনার সমস্যার তিব্রতা সম্পর্কে বলুন এবং নিয়ম মেনে ঔষধ সেবন এবং উপরের নিয়ম অনুযায়ী খাবার নির্বাচন করুন। 

কিছু পরামর্শ | গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি সমস্যা হয়

যাদের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বেশি তারা অবশ্যই তরল খাবার খাবেন, খাবার তালিকায় শাকসবজী রাখতে হবে, অতিরিক্ত পানি পান করতে হবে। প্রতিদিন হালকা বেয়াম করতে হবে, সময় মত ঘুমাতে হবে এবং চিন্তামুক্ত থাকতে হবে। 

১. হ্যামেলিস- রক্তপাতের পাইলস বা হেমোরয়েডের জন্য সেরা হোমিওপ্যাথিক পাইলস ওষুধগুলির মধ্যে একটি (হ্যামামিলিস রক্তি ববাসীর জন্য ওয়েলস মেডিসিন)

রোগীদের চিকিৎসার জন্য সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল তাদের মলে রক্তের উপস্থিতি। এই ধরনের রোগীরা সাধারণত বেশ চিন্তিত এবং উদ্বিগ্ন হয়। তাদের উদ্বেগ কমানোর সর্বোত্তম উপায় হল যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রক্তপাত বন্ধ করা। এই ধরনের ক্ষেত্রে, হ্যামেলিস হল সেরা হোমিওপ্যাথিক পাইলসের রক্তপাতের ওষুধ এবং রক্তপাত বন্ধ করার জন্য আমার খুব কমই অন্য কোনও ওষুধের প্রয়োজন হয়।

যে কোনো ধরনের শিরাস্থ কনজেশন এবং শিরাস্থ রক্তপাত এই ওষুধের আওতায় আসে এবং মলদ্বার অঞ্চল সবচেয়ে বিশিষ্ট। ব্যথার অনুভূতি এবং ক্ষতবিক্ষত ধরণের সংবেদন রয়েছে যা এই ওষুধটি ব্যবহারের জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশক লক্ষণ।

২. রতানহিয়া- বেদনাদায়ক পাইলস বা হেমোরয়েডের জন্য অন্যতম সেরা হোমিওপ্যাথি ওষুধরোগীদের চিকিৎসা সহায়তা চাওয়ার দ্বিতীয় সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল মল পাস করার সময় ব্যথা। এটি সাধারণত বেদনাদায়ক পাইলস হিসাবে উল্লেখ করা হয়। এই অবস্থা নিরাময়ের ক্ষেত্রে, রতনহিয়া হল বেদনাদায়ক পাইলসের জন্য সেরা হোমিওপ্যাথিক প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি। মল ত্যাগ করার সময় ব্যথা হয় এবং কয়েক ঘন্টা পরে ব্যথা থাকে।

মলদ্বারের ভিতরে ভাঙা কাঁচ থাকলে ব্যথার চরিত্রটি এমন হয়। কখনও কখনও ছুরির ভিতরে খোঁচা দেওয়ার মতো ব্যথা হয়। শুষ্ক তাপ বা জ্বালাপোড়াও অনুভূত হতে পারে। ঠাণ্ডা পানির মাধ্যমে এই জ্বালাপোড়া উপশম হতে পারে। বেদনাদায়ক পাইলসের জন্য হোমিওপ্যাথি ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমি রতনহিয়াকে সেরা হোমিওপ্যাথিক পাইলসের ওষুধ হিসাবে রাখি।

৩. গ্রাফাইটস- কোষ্ঠকাঠিন্য সহ পাইলস বা হেমোরয়েডের জন্য সেরা হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলির একটি রোগীর কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে, গ্রাফাইটস হল পাইলস এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য অন্যতম সেরা হোমিওপ্যাথি ওষুধ এবং আমার অনুশীলনে বিস্ময়কর ফলাফল দেখিয়েছে। মল শক্ত, গিঁটযুক্ত এবং মিউকাস থ্রেড দ্বারা একত্রিত হয়। স্থূলতা এই ওষুধের জন্য আরেকটি শক্তিশালী ইঙ্গিত।

এই ধরনের রোগীদের মধ্যে দেখা যায় ত্বকের বিস্ফোরণ আরেকটি সাধারণ লক্ষণ। যখন কেউ এমন একজন রোগীকে খুঁজে পান যিনি স্থূল, ত্বকের বিস্ফোরণ বা ত্বকের বিস্ফোরণের ইতিহাস রয়েছে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য রয়েছে, গ্রাফাইটস এই ধরনের রোগীকে নিরাময় করতে পারে। মহিলাদের ক্ষেত্রেও মাসিকের ব্যাঘাত ঘটে। বেশিরভাগ সময়, মাসিক খুব কম এবং বিলম্বিত হয়।

৪. নাক্স ভোমিকা- বসে থাকা জীবনযাত্রার কারণে পাইলস বা হেমোরয়েডের জন্য সেরা হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলির মধ্যে একটি আধুনিক দিনের জীবনধারা আরও বেশি আসীন হয়ে উঠেছে। একজন অনেক কাজ করার প্রবণতা রাখে কিন্তু শুধুমাত্র মানসিক সমতলে যখন সামান্য শারীরিক কার্যকলাপ থাকে। একই সময়ে, একজন প্রচুর সমৃদ্ধ খাবার এবং আমিষ জাতীয় খাবার গ্রহণ করার প্রবণতা রাখে। 

মদ বা সিগারেটের মতো উত্তেজক ওষুধের ব্যবহারও বেশ বেশি। এর ফলে অনেক সমস্যা হয়, হেমোরয়েড তার মধ্যে অন্যতম। এই ধরনের ক্ষেত্রে, Nux Vomica পাইলসের জন্য সেরা হোমিওপ্যাথিক ওষুধগুলির মধ্যে একটি।

এটি কেবল পাইলস নিরাময় করে না তবে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমকে আবার শৃঙ্খলাবদ্ধ করে। এই ধরনের রোগী সাধারণত একজন আক্রমনাত্মক ব্যক্তি যিনি একজন গো-গেটার। তিনি একজন ঠাণ্ডা রোগী যার মানে তিনি ঠান্ডা বাতাস বা ঠান্ডা আবহাওয়া সহ্য করতে পারেন না।

৫. পিঠে ব্যথা সহ হেমোরয়েডস বা পাইলসের সমস্যার জন্য অ্যাসকুলাস- সেরা হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার (এস্কুলাস পিঠের ব্যথার সাথে ববাসীর জন্য শ্রেষ্ঠ পাইলস মেডিসিন) যদি রোগীর হেমোরয়েডের সাথে পিঠে ব্যথা হয়, তাহলে পাইলস বা হেমোরয়েডের জন্য Aesculus Hippocastanum হল সেরা হোমিওপ্যাথিক প্রতিকার। হেমোরয়েডের সাথে পিঠে ব্যথা আছে এবং এই পিঠে ব্যথার কোন ব্যাখ্যা নেই।

মলদ্বারে ব্যথা হতে পারে যেন এটি ছোট লাঠিতে পূর্ণ। প্রায়শই, সমস্যাটি চরিত্রে অন্ধ, যার মানে কোন রক্তপাত নেই।

ইতি কথাঃ গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয়

গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় সম্পর্কে জানতে হলে আমাদের পুরো পোস্ট পড়ন। গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় সবার আগে জানতে আমাদের সাথেই থাকুন। গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় জানতে হলে আমাদের পুরো আর্টিকেল টি ভাল ভাবে পড়ন, আশা করছি সবকিছু ভালোভাবে বুঝতে পারবেন।

আজ আর নয়, গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় এ বিষয়ে যদি আপনার কোন কিছু জানার থাকে তাহলে আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। আশা করছি আমরা আপনার উত্তরটি দিয়ে। দিব। তাহলে আমাদের আজকের এই গ্যাস্ট্রিক এর ব্যাথা কোথায় কোথায় হয় পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে আপনাদের ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল আমাদের পোস্টটি শেয়ার করতে পারেন, ধন্যবাদ।


অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

রেডিও স্বাধীন দেশ কী রেডিও স্বাধীন দেশ কেন জানতে আমদের সাইটি ভিজিট করুন